সোনাতলায় শশুরবাড়ি থেকে যাবার পথে হামলার স্বিকার জামাই, আহত-১

স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ার সোনাতলায় শশুরবাড়ি থেকে যাবার পথে জামাই এবং তার পরিবারের লোকজনের ওপর হামলা ও মারধরের অভিযোগ উঠেছে। এঘটনার স্বিকার হয়ে রাবেয়া বেগম এক নারী আহত হয়েছে। বুধবার রাতে সোনাতলা পৌর এলাকার বিশুরপাড়া গ্রামে এঘটনা ঘটে। জানাযায়, সোনাতলা পৌরসভাধীন ৪নং ওয়ার্ড পৌর এলাকার বিশুরপাড়া গ্রামের মোঃ সাজাহান আলী তার মেয়েকে জামাইসহ শশুর বাড়ির লোকজনদের পিঠা খাওয়ার দাওয়াত করে। সেই দাওয়াতে সাজাহানের মেয়ে ও তার স্বামি আরিফুল, আরিফুলের বোন রাবেয়া ও তার স্বামি ফারুক সহ বুধবার দুপুরে (শশুর) সাজাহানের বাড়িতে আসে। এরপর সারাদিন থেকে রাতের খাবার শেষে বিশুরপাড়া গ্রামের আনারুল ইসলামের ছেলে বিপুলের অটোভ্যানযোগে তাদের নিজবাড়ি গাবতলী থানার সুখানপুকুর এলাকার তেলিয়াটা গ্রামে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। এসময় ঐ অটোভ্যানটি গ্রামের উজিরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌছলে ৪জন যুবক রাস্তা অবোরুদ্ধকর ভাবে হেটে যাচ্ছিল দেখে ভ্যান চালক বার বার হর্ন দিয়ে তাদের সরে যেতে সংকেত দেয়। এমতাবস্থায় ঐ যুবকেরা ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের উপর চরাও হয়ে ওঠে এবং সেসময় উভয়ের মধ্যে উত্তেজনামুলক বাকবিতন্ডের সৃস্টি হয়। একপর‌্যায়ে ঐ চার যুবক আরো বেশি ক্ষিপ্ত হয়ে তাদেরকে মারধর করে পালিয়ে যায়। এসময় আরিফুলের বোন রাবেয়া আঘাতপ্রাপ্ত হলে তাকে সোনাতলা উপজেলা সাস্থ কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করে। এদিকে সাজাহান আলী ঐ চার যুবকের পরিচয় সনাক্ত করে বলেন, এরা হলো ঐ গ্রামের ইয়াছিন আলী প্রধানের ছেলে রবিউল, আপু আকন্দের ছেলে রাসেল, তারাজুল ইসলাম প্রামানিকের ছেলে তুষার ও সারোয়ার হোসেন প্রামানিকের ছেলে জাহিদ হোসেন। অপরদিকে সাজাহানের জামাই আরিফুল ইসলাম জানায়, মারধরের সময় ঐ চার যুবক তার বোন রাবেয়ার গলা থেকে স্বর্ণের চেন ও তার কাছে থাকা শশুরের দেয়া যৌতুকের ৮০হাজার টাকা কেরে নেয়। এঘটনায় ঐরাতেই হামলা কারি চার যুবককে আসামি করে সোনাতলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান তারা।